বেসেরিল্লো: সাক্ষাত যমদূতরূপী দুর্ধর্ষ এক কুকুর

প্রায় ৩০০০ বছর আগে থেকেই শিকারের কাজে ব্যবহৃত হয়ে আসছে কুকুর। মিশর, গ্রীস, পারস্য, ব্রিটেন কিংবা রোম- সবখানেই দেখা গেছে শিকারে কিংবা শত্রুর মোকাবেলা করতে কুকুরের ব্যবহার। গৃহের পাহারায় কিংবা মানুষের পোষা প্রাণী হিসেবে যেমন রয়েছে কুকুরের ব্যবহার, তেমনি হিংস্র অভিযানেও ব্যবহৃত হয়েছে কুকুর।

তবে এই বিষয়টিকে ভিন্ন মাত্রা দেন পর্তুগিজ নাবিক ক্রিস্টোফার কলম্বাস। ভারতের পথ ধরতে গিয়ে তিনি এসে পড়েছিলেন আমেরিকা মহাদেশে। এখানকার আদিবাসীদের আখ্যায়িত করেছিলেন রেড ইন্ডিয়ান বলে।  

১৪৯৩ সালে হিসপানিওলায় আদিবাসীদের দমনে প্রথম কুকুর ব্যবহার করেন কলম্বাস। বিস্ময়কর সাফল্য পান এতে। ১৪৯৪ সালে জামাইকার আদিবাসী দমনেও একইভাবে সফল হন তিনি। কুকুরদের আনুগত্য আর শিকারের দক্ষতাকে তিনি দুর্দান্তভাবে ব্যবহার করতে শুরু করেন আদিবাসীদের দমনে। ১৪৯৫ সালের ২৭ মার্চ হিসপানিওলায় ভেগা রিয়ালের যুদ্ধে ২০০ সৈন্য, ২০ জন অশ্বারোহী ও ২০ টি ম্যাসটিফ জাতের কুকুর নিয়ে হামলা চালান তিনি। তার সেনাপতি আলোনসো দে ওজেদা গ্রানাডার মুরদের বিরুদ্ধেও ব্যবহার করতে থাকেন কুকুরদের।

শেষ জীবনে ক্রিস্টোফার কলম্বাস; Image Courtesy: History.com

স্ট্যানলি কোরেন তাঁর ‘Pawprints of History: Dogs in the Course of Human Events’ গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন নৃশংসভাবে কুকুরদের ব্যবহারের প্রক্রিয়া।

কুকুরদের সাধারণত ডানদিকে জড়ো করা হতো। যুদ্ধ যখন জমে উঠতো, আর আদিবাসীদের অবস্থা হতে থাকতো ক্রমশ দুর্বল; তখনই ‘টমালোস’ (ধরে ফেলো ওদের) বলে চিৎকার করে উঠত সেনাপতিরা। আর সাথে সাথে ঝাঁপিয়ে পড়ত কুকুরের দল। ম্যাসটিফ জাতের একেকটা কুকুর হতো ২৫০ পাউন্ড ওজনের। সাথে থাকত দীর্ঘ চোয়াল ও তীক্ষ্ম দাঁত। প্রায় নগ্ন আদিবাসীদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে দাঁত দিয়ে তাঁদের চামড়া ছিলে নিতো এরা।  আঁচড়ে-কামড়ে ক্ষতবিক্ষত করে ফেলতো। বের করে ফেলতো নাড়ি-ভুঁড়ি! অনেকসময় কেটে-ছিঁড়ে টুকরো টুকরো করে ফেলতো লাশ!

বালবোয়া, ভেলাকুয়েজ, কোর্তেস, ডে সটো, টোলেডো, করোনাডো, পিজারোসহ অনেক নাবিকেরাই এভাবে কুকুরদের ব্যবহার করেছেন আদিবাসী দমনে।

বেসেরিল্লোর পালক জুয়ান পনচে দে লিয়ন; Image Courtesy: ancient-origins.net

তবে অন্য সব কুকুরকে ছারিয়ে গিয়েছিল একটি কুকুর। নাম তার বেসেরিল্লো। বেজেরিল্লো নামেও পরিচিত ছিলো সে। শব্দটির অর্থ bull বা ষাঁড়। হ্যাঁ, খ্যাপা ষাঁড়ের ক্ষিপ্রতাই ছিল তার মধ্যে। ম্যাসটিফ জাতের কুকুর ছিল বেসেরিল্লো। প্রচণ্ড হিংস্র এই কুকুরটির মালিক ছিলেন জুয়ান পনচে দে লিয়ন। বাদামী চোখের এই কুকুরটি ছিল সুদর্শন। বাদামী চামড়ার ফাঁকে ফাঁকে ছিল লাল লাল ছোপ।

জুয়ান নিজেই বড় করেছিলেন একে। শক্তিশালী প্রশিক্ষণ একে পরিণত করেছিল তার সময়ের হিংস্রতম জীবে। কুকুরটি মাঝে মাঝে সেনাপতি ডিয়েগো গুইলিয়ার্তে দে সালাযার ও সানচো দে আরাগন এর সাহাযার্থেও আসতো। ডিয়েগো সালাযার এর এক অভিযানে ৩০ মিনিটেরও কম সময়ে ৩৩ জন আদিবাসীকে হত্যা করে বেসেরিল্লো। তাদের শরীর কেটে-ছিঁড়ে টুকরো টুকরো করে ফেলেছিল সে! প্রশিক্ষণের ফলে সে খুব সহজেই বুঝতো আদিবাসী আর স্প্যানিশদের পার্থক্য। স্প্যানিশদের কখনো আক্রমণ করতো না সে। কিন্তু আদিবাসীদের গায়ের গন্ধ শুঁকেই তাদের চিনে নিতে পারতো সে।

বেসেরিল্লো ছিলো ম্যাসটিফ জাতের কুকুর; Image Courtesy: ancient-origins.net

তাইমো গোত্রের লোকদের ভিটে থেকে উচ্ছেদ করতেও তাকে ব্যবহার করা হয়েছিল দুর্ধর্ষভাবে। আদিবাসীদের কাছে মূর্তিমান এক আতঙ্ক হিসেবে আবির্ভূত হয় সে। পঞ্চাশজন সৈন্যের চেয়েও বেশি মানুষ একাই মারার ক্ষমতা ছিল এই হিংস্র কুকুরের।

এর ভেতর ঘটে যায় ক্ষমতার পালাবদল। কলম্বাসের পুত্র ডিয়েগোকে বুঝিয়ে-শুনিয়ে পুয়ের্তো রিকোর গভর্নরের পদে বসেন জুয়ান পনচে দ্য লিয়ন। প্রখর ব্যবসায়িক বুদ্ধিসম্পন্ন লিয়ন সোনা উত্তলন করে ব্যাপক ধনী বনে যান। এটা সহ্য হয়নি ডিয়েগোর। লিয়নকে কৌশলে সেখান থেকে সরান রাজাকে বলে। তবে জুয়ানও কম যান না। রাজাকে বুঝিয়ে বিমিনি দ্বীপটির দখল নেন তিনি। সেটা ১৫১২ সালের কথা। সম্পদগুলো এই দ্বীপে মজুদ করে জাহাজে চেপে দ্বীপ ছাড়েন। আর প্রিয় কুকুর বেসেরিল্লোর দায়িত্ব দিয়ে যান ডিয়েগো সালাযার ও সানচো আরাগোন-কে।  

এর ভেতর বিরল এক সৌভাগ্য হয়েছিল এক বৃদ্ধার। সালাযার তার পিছনে লেলিয়ে দিয়েছিলেন বেসেরিল্লোকে। কিন্তু বৃদ্ধার আর্তনাদ শুনে কুকুরটি তাকে ছেড়ে দেয়। এই প্রথম প্রভুর নির্দেশ অমান্য করে ফিরে আসে সে। তাতে অবশ্য সালাযার রাগ করেননি। তিনি বৃদ্ধাকে গ্রেফতার করে গভর্নরের কাছে পাঠান। গভর্নর তখন ক্রিস্টোফার কলম্বাসের পুত্র ডিয়েগো। ডিয়েগো মুক্তি দেন বৃদ্ধাকে। একটা হিংস্র কুকুরের মানবতাবোধ মানুষের চেয়ে বেশি হতে পারে- এটা মানতে পারেননি ডিয়েগো।

ক্যারিবদের হাতে শেষ হয়েছিল বেসেরিল্লোর হিংস্রতার; Image Courtesy: wikipedia.com

বেসেরিল্লোর মৃত্যু হয় ১৫১৪ সালে। ভিয়েক্যুস দ্বীপ থেকে আদিবাসী ক্যারিব-রা পুয়ের্তো রিকো দখল করতে আসে। তাদের আকস্মিক আক্রমণে খেই হারিয়ে ফেলে স্প্যানিশ সৈন্যরা। সানচো দে আরাগোন গ্রেফতার হন। বেসেরিল্লো এবারো তার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছিল, তবে পরিস্থিতি সুবিধার ছিলো না। সাঁতরে খাল পার হবার চেষ্টা করে সে। এতে ক্যারিবদের উপর্যপরি তীরের কবলে পড়ে। গুরুতর আহত বেসেরিল্লো তীরে পৌঁছানোর কিছুক্ষণ পর মারা যায়। তার মৃত্যুতে যে শোকের ছায়া নেমে এসেছিল, তা কোন সৈন্যের মৃত্যুতেও দেখা যায়নি কখনো।


বেসেরিল্লোর প্রতি আমাদের তেমন কোন সহানুভূতি হয়ত কাজ করবে না। দিনশেষে, সে ছিল একটি হিংস্র কুকুর। কিন্তু কুকুর বেসিরিল্লো ছিল তার প্রভুদের প্রতি নিবেদিতপ্রাণ। আর তার সেই মানুষ প্রভুরাই তাকে ব্যবহার করেছে অন্য মানুষদের বিরুদ্ধে।

Feature Image Courtesy: ancitent-origins.net

Reference:

www.ancient-origins.net